Waters of Life

Biblical Studies in Multiple Languages

Search in "Bengali":

Home -- Bengali -- Romans

This page in: -- Afrikaans -- Arabic -- Armenian -- Azeri -- BENGALI -- Bulgarian -- Cebuano -- Chinese -- English -- French -- Hebrew -- Hindi -- Indonesian -- Malayalam -- Polish -- Portuguese -- Russian -- Serbian -- Spanish -- Turkish -- Urdu -- Yiddish

Previous Book? -- Next Book?

রোমীয়দের - প্রভুই আমাদের ধার্মিকতা

রোমীয়দের কাছে হযরত পৌলের লেখা পত্রের ওপর পর্যালোচনা

Jump to Chapter: ০১ -- ০২ -- ০৩ -- ০৪ -- ০৫ -- ০৬ -- ০৭ -- ০৮
Jump to Chapter: ০৯ -- ১০ -- ১১ -- ১২ -- ১৩ -- ১৪ -- ১৫ -- ১৬

উদ্বোধন: সম্ভাষণ ও খোদার শুকরীয়া খোদার 'ধার্মিকতার ওপর' গুরুত্বারোপ করাই হলো এই পত্রের প্রধান লক্ষ্যবিন্দু (রোমীয় ১:১-১৭)
ক) সনাক্তকরণ ও আশির্বাদ বচন (রোমীয় ১:১-৭)
খ) হযরত পৌলের রোমে যাবার জন্য দীর্ঘ আকাঙ্খা (রোমীয় ১:৮-১৫)
গ) নিয়ত বিশ্বাসের ফলেই খোদার ধার্মিকতা আমাদের মধ্যে প্রতিষ্ঠিত ও বাস্তবায়িত হয়ে থাকে (রোমীয় ১:১৬-১৭)
প্রথম খন্ড - খোদার ধার্মিকতা সকল পাপীকে দোষী সাব্যস্থ করে, আর মসিহের ওপর বিশ্বাসিদের ন্যায়বান ও আলাদা করে (রোমীয় ১:১৮ - ৮:৩৯)
ক - গোটা বিশ্ব দুষ্টচক্রের প্রভাবে পড়ে আছে, হচ্ছে পরিচালিত, খোদা তাঁর ধার্মিকতার আলোকে তাদের বিচার করবেন (রোমীয় ১:১৮ - ৩:২০)
১. জাতির বিরুদ্ধে খোদার গজব প্রকাশিত হয়েছে (রোমীয় ১:১৮-২১)

২. The Wrath of God is Revealed against the Jews (রোমীয় ২:১ - ৩:২০)
ক) যে কেউ অন্যের বিচার করে সে তো পরিষ্কার নিজেকে দোষী সাব্যস্থ করছে (রোমীয় ২:১-১১)
খ) শরীয়ত না বিবেক মানুষকে দংশন করে? (রোমীয় ২:১২-১৬)
গ) জ্ঞানের দ্বারা নয় মানুষ রক্ষা পায় কাজের ফলে (রোমীয় ২:১৭-২৪)
ঘ) ত্বকচ্ছেদ রুহানি বিষয়ে কোনো হিতকর নয় (রোমীয় ২:২৫-২৯)

ঙ) ইহুদিদের প্রতি বিশেষ অনুগ্রহ খোদার ক্রোধ থেকে তাদের রক্ষা করতে পারেনি (রোমীয় ৩:১-৮)
৩. সকলেই বিনষ্ট এবং দোষী (রোমীয় ৩:৯-২০)
বি - ইমানের দ্বারা নতুন ধার্মিকতা লাভের সুযোগ রয়েছে সবার জন্য খোলা (রোমীয় ৩:২১ - ৪:২২)
১. মসিহের অভিষিক্ত মৃতু্যর মাধ্যমে খোদার ধার্মিকতার প্রকাশ ঘটেছে (রোমীয় ৩:৩১-২৬)
২. আমরা মসিহের ওপর বিশ্বাসে ন্যায়বান বলে প্রতিপন্ন হয়েছি (রোমীয় ৩:২৭-৩১)

৩. ইমানে নির্দোষ বলে গৃহিত হবার উত্তম দৃষ্টান্ত হলো হযরত ইব্রাহীম ও দায়ুদ নবী (রোমীয় ৪:১-২৪)
ক) কেবলমাত্র বিশ্বাসের কারণেই হযরত ইব্রাহীমকে ধার্মিক বলে গ্রহন করা হয় (রোমীয় ৪:১-৮)
খ) খত্‍নার দ্বারা মানুষ ধার্মিক বলে গণ্য হয় নি (রোমীয় ৪:৯-১২)
গ) আমরা নাজাত পেয়েছি খোদার রহমতে, শরীয়ত পালনের দ্বারা নয় (রোমীয় ৪:১৩-১৮)
ঘ) ইব্রাহীমের সাহসিকতাপূর্ণ বিশ্বাস আমাদের জন্য দৃষ্টান্ত (রোমীয় ৪:১৯-২২)

সি - ন্যায়বান ঘোষণার অর্থ হলো খোদা ও মানুষের সাথে একটি নতুন সম্পর্ক স্থাপন করা (রোমীয় ৫:১-২১)
১. শান্তি, প্রত্যাশা এবং প্রেম বিশ্বাসীদে জীবনে থাকে সদা বিরজমান (রোমীয় ৫:১-৫)
২. পুনরুত্থিত মসিহ তাঁর ধার্মিকতার পূর্ণতা আমাদের মধ্যে প্রতিষ্ঠা করেন (রোমীয় ৫:৬-১১)
৩. মসিহের রহমত মৃতু্য, পাপ ও শরীয়তের উপর বিজয় লাভ করে (রোমীয় ৫:১২-২১)

ডি - পাপের ক্ষমতা থেকে খোদার শক্তি আমাদের উদ্ধার করেন (রোমীয় ৬:১ - ৮:২৭)
১. The Believer Considers Himself Dead to Sin (রোমীয় ৬:১-১৪)
২. শরীয়তের কবল থেকে মুক্তি পাপের করাল গ্রাস থেকে অব্যাহতি বয়ে আনে (রোমীয় ৬:১৫-২৩)

৩. শরীয়তের গ্রাস থেকে মুক্তির অর্থ মসিহের পক্ষে সেবাদানের সুযোগ (রোমীয় ৭:১-৬)
৪. শরীয়ত চুপিসারে গুণাহগারদের গুণাহের কথাই বলে (রোমীয় ৭:৭-১৩)
৫. পাপের পথে মসিহকে ব্যতিত মানুষ সর্বদা ব্যর্থ হতে বাধ্য (রোমীয় ৭:১৪-২৫)

৬. মসিহের মাধ্যেমেই মানুষ অপরাধ, পাপ, মৃতু্যর কবল থেকে পায় মুক্তি (রোমীয় ৮:১-১১)
৭. আমরা খোদার সন্তান হতে পেরেছি আমাদের মধ্যে পাকরূহের উপস্থিতির কারণে (রোমীয় ৮:১২-১৭)
৮. তিনটি গভীর আর্তনাদ (রোমীয় ৮:১৮-২৭)
ঙ - আমাদের বিশ্বাস চিরকালের জন্য স্থায়ী (রোমীয় ৮:২৮-৩০)
১. খোদার নাজাতদানের পরিকল্পনা দাবি জানায় আমাদের জন্য আগত গৌরব (রোমীয় ৮:২৮-৩০)
২. মসিহের সত্য নিশ্চয়তা দেয় সমস্ত প্রকার সমস্যা থাকা সত্ত্বেও আমাদের সহভাগিতা রয়েছে খোদার সাথে (রোমীয় ৮:৩১-৩৯)

দ্বিতীয় খণ্ড - খোদার বাছাই করা বংশ হযরত ইয়াকুবের সন্তানদের মন কঠিন করা সত্ত্বেও তাঁর ধার্মিকতা সম্পূর্ণ অনড়৷ (রোমীয় ৯:১ - ১১:৩৬)
১. পৌলের উদ্বেগ তাঁর হারিয়ে যাওয়া লোকদের জন্য (রোমীয় ৯:১-৩)
২. মনোনীত লোকদের জন্য রুহানি অধিকার (রোমীয় ৯:৪-৫)
৩. ইস্রায়েলের অধিকাংশ লোকজনও যদি খোদার বিরুদ্ধে চলে যায় তবুও খোদা থাকবেন ধার্মিক (রোমীয় ৯:৬-২৯)
ক) খোদার প্রতিজ্ঞা কেবল ইব্রাহীমের ঔরষজাত সন্তানদের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য হবার নয় (রোমীয় ৯:৬-১৩)
খ) যাদের ওপর তাঁর করুনা রয়েছে তাদেরকেই খোদা বেঁছে নেন, যাকে চান তিনি তার হৃদয় কঠিন করে দেন (রোমীয় ৯:১৪-১৮)
গ) কুমার ও তার হাতে নির্মিত পাত্রের দৃষ্টান্ত ইহুদি ও মসিহিদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য (রোমীয় ৯:১৯-২৯)

৪. খোদার ধার্মিকতা কেবল বিশ্বাসেই হয় লব্ধ আর তা কখনোই শরীয়ত পালনের দ্বারা অর্জণ করা সম্ভব নয় (রোমীয় ৯:৩০ - ১০:২১)
ক) ইহুদিরা খোদার ধার্মিকতাকে তুচ্ছজ্ঞান করেছে, যা কেবল বিশ্বাসহেতু হয় লব্ধ৷ তারা ধার্মিকতা অর্জনের জন্য শরীয়তের ও কর্মের ওপর স্থির প্রতিজ্ঞ রয়েছে (রোমীয় ৯:৩০ - ১০:৩)
খ) খোদার আশির্বাদ অন্যান্য জাতির চেয়ে ইস্রায়েল জাতির ওপর অধিক থাকার কারণেই ইস্রায়েল জাতির পাপাচারের মাত্রা মারাত্মক হয়েছিল (রোমীয় ১০:৪-৮)
গ) ইয়াকুবের বংশের কাছে সুসমাচার প্রচার অত্যাবশ্যক হয়ে দাঁড়িয়েছে (রোমীয় ১০:৯-১৫)
ঘ) ইস্রায়েল জাতি নিজেরাই কি দায়ী তাদের অবিশ্বাসের জন্য? (রোমীয় ১০:১৬-২১)

৫. ইয়াকুবের বংশের লোকদের প্রত্যাশা (রোমীয় ১১:১-৩৬)
ক) পবিত্র বংশের শেষাংশ অবিশষ্ট থাকবে৷ (রোমীয় ১১:১-১০)
খ) অইহুদিরে প্রতি নাজাত প্রদানে ইহুদিদের অথর্াত্‍ ইয়াকুবের সন্তানদের মনে কোনো ঈর্ষা প্রতিযোগিতা জাগার সম্ভাবনা আছে কি? (রোমীয় ১১:১১-১৫)
গ) অইহুদিদের মধ্য থেকে বিশ্বাসীদের সাবধান করতে হবে ইয়াকুবের সন্তানদের সম্বন্ধে (রোমীয় ১১:১৬-২৪)
ঘ) যুগের শেষ দিকে ইয়াকুবের বংশের নাজাত প্রদানের রহস্য (রোমীয় ১১:২৫-৩২)
ঙ) সাহাবিদের আরাধনা (রোমীয় ১১:৩৩-৩৬)

তৃতীয় পার্ট - খোদার ধার্মিকতা মসিহের সাহাবীদের জীবনাচরণের মধ্য দিয়ে প্রতিভাত হয়েছে৷ (রোমীয় ১২:১ - ১৫:১৩)
১. জীবনের মুক্তপাপ অবস্থা প্রতিষ্ঠা পায় খোদার ওপর আত্মসমর্পণের মাধ্যমে (রোমীয় ১২:১)
২. অহংকারী হয়ো না, যে দান খোদা তোমাদের দিয়েছেন বিশ্বাসীদের নিয়ে প্রভুর সেবাকর্মে লেগে থাকো (রোমীয় ১২:৩-৮)
৩. ভ্রাতৃপ্রেম আমাদের শেখা প্রয়োজন এবং তদানুযায়ী নিজেদের গড়ে তোলা দরকার৷ (রোমীয় ১২:৯-১৬)
৪. তোমাদের শত্রম্ন ও বিরম্নদ্ধবাদীদের মহব্বত করো (রোমীয় ১২:১৭-২১)

৫. তোমরা কর্তৃপক্ষের অধিনস্থ থাকো (রোমীয় ১৩:১-৬)
৬. মানুষ সংক্রানত্ম হুকুমের সারকথা (রোমীয় ১৩:৭-১০)
৭. মসিহের পুনরায় ফিরে আসার বিষয়ক জ্ঞানের বাসত্মবফল (রোমীয় ১৩:১১-১৪)

৮. রোমের জামাতের বিশেষ সমস্যা (রোমীয় ১৪:১-১২)
৯. গুরম্নত্বহীন বিষয় নিয়ে তোমার প্রতিবেশিকে রাগান্বিত করো না (রোমীয় ১৪:১৩-২৩)

১০. অনভিপ্রেত সমস্যা নিয়ে পরিপক্ক বিশ্বাসীদের কি ধরণের আচরণ করা উচিত? (রোমীয় ১৫:১-৫)
১১. ইহুদি ও অন্যান্য জাতির মধ্য থেকে আগত বিশ্বাসীদের মধ্যে যে বিভেদ ছিল মসিহ তা দূর করে দিয়েছেন (রোমীয় ১৫:৬-১৩)
তৃতীয় খন্ডের পারশিষ্ট - রোমের জামাতের নেতাদের প্রতি পৌলের বিশেষ ইচ্ছা৷ (রামীয় ১৫:১৪ - ১৬:২৭)
১. এ পত্রটি লেখার যোগ্যতা পৌলের রয়েছে (রোমীয় ১৫:১৪-১৬)
২. পৌলের প্রচার রহস্য (রোমীয় ১৫:১৭-২১)
৩. পৌলের প্রচার অভিযান যা প্রত্যাশা করেছিলেন (রোমীয় ১৫:২২-৩৩)

৪. পৌলের জানা মতো রোমের জামাতের সাধুদের নামের তালিকা (রোমীয় ১৬:১-৯)
৫. পৌলের জানা মতো রোমের জামাতের সাধুদের নামের তালিকার বিসত্মৃত বিবরণ (রোমীয় ১৬:১০-১৬)
৬. প্রতারকদের বিষয়ে সাবধানবাণী (রোমীয় ১৬:১৭-২০)
৭. পৌলের সহকমর্ীদের পক্ষ থেকে অভিবাদন জ্ঞাপন (রোমীয় ১৬:২১-২৪)
৮. এ পত্রটি শেষ করার সময় পৌল তার কৃতজ্ঞতা স্বীকার করেন (রোমীয় ১৬:২৫-২৭)

www.Waters-of-Life.net

Page last modified on February 25, 2014, at 01:53 PM | powered by PmWiki (pmwiki-2.2.109)