Waters of Life

Biblical Studies in Multiple Languages

Search in "Bengali":
Home -- Bengali -- Romans - 037 (Deliverance to the Service of Christ)
This page in: -- Afrikaans -- Arabic -- Armenian -- Azeri -- BENGALI -- Bulgarian -- Cebuano -- Chinese -- English -- French -- Hebrew -- Hindi -- Indonesian -- Malayalam -- Polish -- Portuguese -- Russian -- Serbian -- Spanish? -- Turkish -- Urdu? -- Yiddish

Previous Lesson -- Next Lesson

রোমীয়দের - প্রভুই আমাদের ধার্মিকতা
রোমীয়দের কাছে হযরত পৌলের লেখা পত্রের ওপর পর্যালোচনা
প্রথম খন্ড - খোদার ধার্মিকতা সকল পাপীকে দোষী সাব্যস্থ করে, আর মসিহের ওপর বিশ্বাসিদের ন্যায়বান ও আলাদা করে (রোমীয় ১:১৮ - ৮:৩৯)
ডি - পাপের ক্ষমতা থেকে খোদার শক্তি আমাদের উদ্ধার করেন (রোমীয় ৬:১ - ৮:২৭)

৩. শরীয়তের গ্রাস থেকে মুক্তির অর্থ মসিহের পক্ষে সেবাদানের সুযোগ (রোমীয় ৭:১-৬)


রোমীয় ৭:১-৬
১. ভাইয়েরা, তোমরা তো শরীয়ত জান৷ তোমরা কি জান না যে, যতদিন মানুষ জীবিত থাকে ততদিনই শরীয়তের দাবি তার উপরে থাকে? ২. যতদিন স্বামী বেঁচে থাকে ততদিনই স্ত্রী আইন দ্বারা তার সঙ্গে বাঁধা থাকে৷ কিন্তু স্বামী মারা যাবার পর সেই আইনের বাঁধন থেকে স্ত্রী মুক্ত হয়৷ ৩. সেজন্য স্বামী বেঁচে থাকতে সেই স্ত্রী যদি অন্য কাউকে বিয়ে করে তবে তাকে জেনাকারিনী বলা হয়৷ কিন্তু যদি তার স্বামী মারা যায় তবে সেই আইনের বাঁধন থেকে মুক্ত হয়৷ আর তখন যদি সে অন্য কাউকে বিয়ে করে তবে সে জেনাকারিণী হয় না৷ ৪. ঠিক সেভাবে আমার ভাইয়েরা, মসিহের শরীরের মধ্য দিয়ে মূসার শরীয়তের দাবি-দাওয়ার কাছে তোমরাও মরেছ৷ তার ফলে যাঁকে মৃতু্য থেকে জীবিত করা হয়েছে তোমরা সেই ঈসা মসিহেরই হয়েছ, যেন আল্লাহর জন্য তোমাদের জীবন ফলবান হয়ে ওঠে৷ ৫. আমরা যখন গুনাহ-স্বভাবের অধীনে ছিলাম তখন শরীয়ত আমাদের মধ্যে গুনাহের কামনা-বাসনা জাগিয়ে তুলত এবং সেই কামনা-বাসনা আমাদের শরীরের মধ্যে কাজ করত; তাই আমাদের জীবন মৃতু্যর জন্য ফলবান হত৷ ৬. তখন আমাদের যা বেঁধে রাখত তার দাবি-দাওয়ার কাছে আমরা মরেছি৷ সেজন্য শরীয়ত থেকে এখন আমরা মুক্ত৷ আর ফলে আমরা এখন লেখা শরীয়তের সেই পুরানো জীবন-পথের গোলাম নই, কিন্তু পাক-রূহের দেওয়া নতুন জীবন পথের গোলাম হয়েছি৷

পৌল প্রত্যাশা করেছিলেন, রোমে বসবাসকারী বিশ্বাসী ইহুদি ভাইদের প্রতিক্রিয়া, তারা তাঁর শিক্ষা গ্রহণ করবে যা হলো তাদের নৈতিক মৃতু্য ও মসিহে পুনরুত্থান ঘটেছে৷ যাহোক, পৌল জানতেন, তাকে শরীয়তের বিষয়ে পরিপূর্ণ ব্যাখ্যা দিতে হবে, তারা এর মধ্যে খোদার অনুপ্রেরণা দেখতে পেয়েছেন, সর্বোপরি পূর্ণাঙ্গ ঐশি প্রত্যাদেশ মুসা নবীর মাধ্যমে দেয়া হয়েছে৷

পৌল তাদের কাছে বললেনঃ তোমরা যারা শরীয়ত জানো ও শরীয়তকে ভালোবাসো, তোমরা শরীয়তের দ্বারা বন্দি হয়ে আছো যেমন মিয়াবিবি বৈবাহিক চুক্তিতে থাকে বন্দি৷ বৈবাহিক চুক্তি অকার্যকর হয়ে যায় যখন যুগলের যে কোনো একজনের মৃতু্য ঘটে, তদ্রুপ শরীয়তের চুক্তি থেকে তোমরাও মুক্ত হয়েছো মসিহের মৃতু্যর সাথে বিশ্বাসে তোমরাও মৃতবত্‍ হবার ফলে৷ কবরে তার মরদেহের অর্থ তোমাদের মরদেহ কবরে হয়েছে শায়িত, তাই মৃতু্যর আর কোনো ক্ষমতা নেই তোমাদের ওপর৷

তথাপি মসিহ হয়েছেন পুনরুত্থিত, তাই জীবনের যুবরাজকে বাছাই করুন আর খোদার পুত্রের সাথে নতুন চুক্তিতে যুক্ত হউন৷ পুরাতন ব্যবস্থা হলো মৃতু্যর ব্যবস্থা যা হলো শরীয়তের চূড়ান্ত রায় হলো পাপীর মৃতু্য৷ আর এখন আপনি জীবনের যুবরাজের সাথে যুক্ত হয়েছেন, ফলে পাকরূহের ফল সমূহ পরিপূর্ণভাবে আপনার মধ্যে ফুটে ওঠেছে, মহব্বত, আনন্দ, শান্তি, সহ্যগুণ, দয়ার স্বভাব, ভালো স্বভাব, বিশ্বস্ততা, নম্রতা ও নিজেকে দমন, তার সাথে মসিহের অন্যান্য চরিত্র আপনার মধ্য দিয়ে ফুটে ওঠেছে কৃতজ্ঞতা, সত্য, পবিত্রতা এবং পরিতৃপ্তি৷

খোদা তাঁর পুত্রের চারিত্রিক ফল সমূহ আপপনার জীবন দিয়ে প্রষ্ফুটিত করতে চান, কেননা মসিহ মৃতু্য বরণ করেছেন, হয়েছেন পুনরুত্থিত আর তাঁর পাকরূহকে মানুষের মধ্যে ঢেলে দিয়েছেন যেন আরও অন্যান্য ব্যক্তিবর্গ তার চারিত্রিক গুণাবলিতে পুষ্ট হয়ে ওঠতে পারে৷ বাগানের মালিক যেমন কঠোর শ্রম দেয় সুফল প্রাপ্তির আশায় তদ্রুপ খোদার প্রত্যাশা ও অধিকার রয়েছে আপনার মধ্য দিয়ে সুফল প্রাপ্তির৷

মসিহের আবির্ভাবের পূর্বে মানুষকে মনে করা হতো শরীয়তের ক্রীতদাস৷ যতক্ষণ পর্যন্ত না লালসা কামনার পূর্ণাঙ্গ বিকাশ না ঘটে তার শরীরের মধ্য থেকে শরীয়তের নিষেধাজ্ঞা উল্টো উত্‍সাহ যোগায় নিষিদ্ধ কাজ করার জন্য৷ শরীয়ত আমাদের চালিত করে মৃতু্যর ফল উত্‍পন্ন করার দিকে৷ তা কেবল ভ্রান্ত পথেই প্রেরণা দেয় না বরং মারাত্মকভাবে আমাদের দোষী সাব্যস্থ করে৷

যাহোক, মসিহের মৃতু্যর সাথে আমরাও শরীয়তের দাবি-দাওয়ার কাছে সম্পূর্ন মৃত৷ যেহেতু আমাদের বিশ্বাসের মাধ্যমে নিজেদের কাছে সলিবে হত মসিহের সাথে আমরা মৃতবত্‍, আমরা আমাদের মৃত বলে বিবেচনা করি, তাই পুরাতন শরীয়তের কাছে আমরা মৃত৷

একই সময় খোদার পুত্র আমাদের ডেকেছেন নতুন চুক্তিতে আবদ্ধ হবার জন্য, যা উত্তম জীবন্ত কালামের উপর হয়েছে প্রতিষ্ঠিত, যার ফলে আমরা সেখান থেকে আছড়ে পরবো না, বরং খোদার সেবা করে চলবো তাঁর রূহের পরাক্রমে৷ কতকগুলো ভিতিকর নিষেধাজ্ঞার মধ্যে আমরা আর আবদ্ধ নই বরং আমরা আহুত হয়েছি প্রেম, বিজয় ও আনন্দের জীবনে, ঐশি প্রেম ও শান্তির রাজ্যে৷ নতুন নিয়মের রূহ, না বৃদ্ধ হবে, না হবে ক্লান্ত, কেননা তিনি হলেন স্বয়ং খোদা আর তাঁর পরিপূর্ণতা অনন্তকালীন৷ রয়েছে তার সীমাহিন ক্ষমতা, প্রজ্ঞা, উত্‍কর্ষতা, দয়া এবং প্রত্যাশা৷ তাই খোদার রুহের কাছে সম্পূর্ণভাবে সমর্পিত হোন, তার সুসমাচারে যাতে আপনি অর্জন করতে পারেন প্রচুর পরিমানে রুহানি সম্পদ ও ঐশি ক্ষমতা, বৃদ্ধিলাভ করতে পারেন মসিহের বিনম্রতায় ও সেবামূলক মনোভাবে, যেহেতু আপনার ঘটেছে মৃতু্য ও তিনি আপনার মধ্যে রয়েছেন জীবিত৷

প্রার্থনা: হে পবিত্র খোদা, তুমি আমাদের আহ্বান জানিয়েছ বলে তোমাকে ধন্যবাদ দেই, তুমি শরীয়তের দাসত্বের শৃঙ্খল থেকে আমাদের করেছো মুক্ত৷ সলিবে আত্ম কোরবানির মাধ্যমে মসিহ পূর্ণতা দিয়েছেন ঐশি প্রেম ও সত্যের৷ আমরা তোমাকে ধন্যবাদ দেই কেননা তুমি আমাদের নতুন চুক্তিতে আবদ্ধ করেছো, আর তুমি সান্তনাদানকারী পাকরূহের মাধ্যমে আমাদের হৃদয়ে বাস করে করুনার ক্ষমতায় রুহানি ফল উত্‍পাদন করে চলছো৷

প্রশ্ন:

৪১. পুরাতন নিয়মের কবল থেকে সকল বিশ্বাসীদের কেন মুক্ত করা হয়েছে?

আমরা বিশ্বাস করি যে,
হযরত ঈসার রহমতে অ-ইহুদি ঈমানদারেরা
যেমন নাজাত পেয়েছে তেমনি আমরাও
নাজাত পেয়েছি

(প্রেরত ১৫:১১)

www.Waters-of-Life.net

Page last modified on February 25, 2014, at 01:15 PM | powered by PmWiki (pmwiki-2.2.109)