Waters of Life

Biblical Studies in Multiple Languages

Search in "Bengali":
Home -- Bengali -- John - 046 (Sifting out of the disciples)
This page in: -- Arabic -- Armenian -- BENGALI -- Burmese -- Cebuano -- Chinese -- English -- Farsi? -- French -- Hausa? -- Hindi -- Indonesian -- Kiswahili -- Kyrgyz -- Malayalam -- Peul -- Portuguese -- Russian -- Serbian -- Spanish? -- Tamil -- Telugu -- Turkish -- Urdu -- Uyghur? -- Uzbek -- Vietnamese -- Yiddish

Previous Lesson -- Next Lesson

যোহন - নূর অন্ধকারের মধ্যে জ্বলছে
যোহন বর্ণীত মসিহের নাজাতের বারতার সুসমাচার ওপর অধ্যয়ন
দ্বিতীয় খণ্ড - নূর অন্ধকারের মধ্যে জ্বলিতেছে (যোহন ৫:১ - ১১:৫৪)
বি - ঈসা মসিহ হলেন জীবনের রুটি (যোহন ৬:১-৭১)

৫. সাহাবিদের বাছাই করুন (যোহন ৫:৫৯-৭১)


যোহন ৬:৫৯-৬০
৫৯. এই কথা শুনিয়া তাঁহার উম্মতগন বলিল, 'ইহা বড় কঠিন শিক্ষা৷ ৬০. কে ইহা গ্রহণ করিতে পারে?'

খোদার রুটি এবং ঈসা মসিহের মাংস খাবার বিষয়টি বিভিন্ন সময় আলোচিত হয়েছিল৷ তিনি কিছু বিষয়বস্তু পুনরাবৃত্তি করেছিলেন এবং তার সারমর্মকে ক্রমশ: গভীরভাবে ব্যাখ্যা করেছিলেন৷ যাইহোক, আলোচনাগুলোকে সংগ্রহ করে একটি সংকলন গ্রন্থ তৈরি করেছিলেন৷ আমরা ঈসা মসিহকে কফরনাহুমের ইহুদিদের এবাদত খানায় তাঁর শ্রোতামন্ডলীকে পরোক্ষভাবে এই শিক্ষা দিতে দেখেছি যে তিনি মুসা থেকে অধিকতর উত্তম এবং সকল বিশ্বাসীদের উচিত তাঁর মাংস এবং রক্তে অংশগ্রহণ করা৷

এরকম প্রকাশিত বাক্য এমনকি তাঁর অনুগত অনুসারীদের উপলব্ধির বাইরে ছিল৷ তারা প্রশ্ন করতে এবং সন্দেহ করতে লাগলো৷ তারা খোদাকে মানতে এবং তার সেবা করতে সিদ্ধান্ত নিয়েছিল, কিন্তু তারা তাঁর মাংস ভক্ষণ ও রক্ত পান করার মতো অসম্ভব বিষয়টির ব্যাপারে বিভ্রান্ত হয়ে পড়েছিল৷ তাদের এই হতবুদ্ধিতার কারণে প্রভু তার বিশ্বস্ত অনুসারীদের হৃদয়কে করুণার মধ্য দিয়ে উম্মোচিত করেছিলেন জীবন-রুটির রূপকণ্ডকাহিনী উপলব্ধি করার জন্য৷

যোহন ৬:৬১-৬৩
৬১. ঈসা মসিহ নিজের মনে বুঝিতে পারিলেন যে তাহার উম্মতেরা এই বিষয় লইয়া নানান কথা বলিতেছে৷ সেই জন্য তিনি তাহাদের বলিলেন, ৫২. 'ইহাতেই কি তোমরা মনে বাধা পাইতেছ? তবে মনুষ্য-পুত্র আগে যেখানে ছিলেন, তাঁহাকে সেখানে উঠিয়া যাইতে দেখিলে তোমরা কি বলিবে? ৬৩. মানুষের দেহ কোনো কাজের নয়' পাক-রুহই জীবন দেন৷ আমি তোমাদের যে কথাগুলি বলিয়াছি তাহা রুহ ও জীবন'৷

ঈসা মসিহ তার সাহাবিদের চিন্তাধারাকে অনুধাবন করেছিলেন এবং তাদের প্রশ্নের জন্য তাদেরকে দোষারোপ করেননি৷ তাদের অভিযোগগুলো অবিশ্বাসীদের মতো তাদের বিপথগামীতার বিষয় ছিল না, কিন্তু এটার কারণ ছিল ঈসা মসিহের রহস্যের রূপক-কাহিনীর ভুল বোঝাবুঝির কারণে৷ ঈসা মসিহ তাদেরকে জ্ঞান দেওয়ার আগে তিনি রূপক-কাহিনীর অস্পষ্টতার বিষয় স্পষ্ট করে বলেছিলেন, যেটা দুনিয়াকে রক্ষা করবার পরিকল্পনার পূর্ণ ব্যাখ্যা ছিল৷

তিনি স্বাভাবিকভাবে তাদের জন্য মৃতু্যবরণ করবেন না এবং আধ্যাত্মিকভাবে তার দেহকে খাওয়াবেন না, কিন্তু তাঁর পিতার কাছে উঠে যাবেন৷ তিনিই সেই, যিনি বেহেশত থেকে আসেন, কিন্তু দুনিয়ায় অবস্থান করবেন না৷ তারা তাকে হ্রদের ওপর দিয়ে হেঁটে যেতে দেখেছিল এবং উপলব্ধি করেছিল যে তিনি একজন অতিমানব৷ তিনি তাঁর পিতার কাছে উঠে যাবেন তার অনুসারীদেরকে তার রুহ দিয়ে পূর্ণ করতে৷ এটা ছিল তার মৃতু্যর উদ্দেশ্য এবং তার আসার লক্ষ্য৷ তাদের কাছে তার দান তার মাংস কেটে দেওয়ার বিষয় ছিল না, বরং তার অনুসারীদের হৃদয়ে প্রবশে করতে আসেন৷ তার বস্তুগত দেহ নয় কিন্তু তার পাক-রুহ আমাদের মধ্যে প্রবেশ করে৷

ঈসা মসিহ দেখিয়েছিলেন যে মাংস কিছুই লাভ করে না৷ মৌলিকভাবে আমরা সৃষ্ট হয়েছি অক্ষত এবং সুস্থভাবে, কিন্তু আমাদের চিন্তাধারা এবং সত্ত্বা দূষিত হয়ে পড়ে৷ সত্‍ জীবন-যাপনের জন্য আমাদের দেহের মধ্যে আমরা কোনো শক্তি খুঁজে পই না, শুধুমাত্র পাপ করা ছাড়া৷ তার নিজের দেহ দুর্বলতাপ্রবণ ছিল, তাই তিনি বলেছিলেন 'সতর্ক থাক এবং প্রার্থনা কর যেন প্রলোভনে না পড়৷ রুহ ইচ্ছুক কিন্তু মাংস দুর্বল'৷

খোদার প্রশংসা হোক, ঈসা মসিহ সকল সময়ের জন্য পাক-রুহকে তার দেহের মধ্যে বহন করেছিলেন, তার মধ্যে রুহের উপস্থিতি ছিল তার সত্তার রহস্য৷ এই রুহ এবং দেহের একাত্মতাকে তার মৃতু্য পুনুরুত্থান ও বেহেশতে আরোহণের মধ্য দিয়ে আমাদেরকে প্রদান করতে চেয়েছিলেন এবং আমাদের অতি দূর্বল দেহের মধ্যে পাক-রুহকে বসবাস করতে দিতে চেয়েছিলেন৷ আগেই তিনি নিকদিমকে একথা সত্যার্পণ করেছিলেন ঢুকতে সমর্থ করে, যা উল্লেখিত হয়েছিল যোহনের পানি দিয়ে বাপ্তিস্ম এবং রুহের বাপ্তিস্মের মধ্য দিয়ে৷ জীবনের রুটির ওপর আলোচনার মধ্যে ঈসা মসিহ তার সাহাবিদের কাছে ব্যাখ্যা করেছিলেন, তিনি তাদের কাছে আসবেন, কারণ তারা প্রভুর ভোজে অংশ নিয়েছিল: এই শর্তে যে, এই প্রতীকী কার্যগুলি কোনো ফল বয়ে আনে না, যদি না পাক-রুহ যিনি পুনরুজ্জীবিত করেন যেখানে দেহের কোনো মূল্যই নেই৷ একমাত্র ঈসা মসিহের রুহ বিশ্বাসীদের মধ্যে তার উপস্থিতিকে নিশ্চিত করে৷

কীভাবে পাক-রুহ আমাদের ওপর নেমে আসে? এটা তাদের জন্য মূল প্রশ্ন যারা তার দেহ এবং রক্তের মধ্যে অংশগ্রহণ করে ঈসা মসিহের সাথে একাত্ব হয়ে সঠিকভাবে বাস করতে৷ ঈসা মসিহ সহজভাবে জবাব দেন, 'আমার কথা কোনো, তোমাদের হৃদয়কে সুসংবাদের ভান্ডারের দিকে উম্মুক্ত করো'৷ ঈসা মসিহ খোদার বাক্য, যে কেউ তার কথা শোনে এবং তার ওপর বিশ্বাস রাখে সে পাক-রুহ দ্বারা পূর্ণ হয়৷ আপনার অনুরাগকে খোদার শক্তির সাথে পূর্ণ করুন এবং পাক-কিতাবের অনেক পাঠ্যাংশকে মুখস্ত করুণ৷ খোদার প্রতিশ্রুতির ওপর স্থির থাকুন৷ তার সততাকে ধরে রাখুন, আপনি উদ্ভাবক ও আবিষ্কারকদের থেকে অনেক বেশি শক্তিশালী হবেন৷ কারণ তার নাজাতের কথার মধ্য দিয়ে বিশ্ব-ভ্রমান্ডের স্রষ্টা আপনার কাছে নেমে আসবেন, আপনাকে তার জীবন এবং কতর্ৃত্ব দেবেন৷

যোহন ৬:৬৪-৬৫
৬৪. কিন্তু তোমাদের মধ্যে এমন কেহ আছে যাহারা আমার ওপর ঈমান আনে নাই'৷ কে কে ঈসা মসিহের ওপর ঈমান আনে নাই, আর কে-ই বা তাঁহাকে শত্রুদের হাতে ধরাইয়া দিবে, ঈসা মসিহ প্রথম হইতেই তাহা জানিতেন৷ ৬৫. আর সেইজন্য তিনি বলিলেন, 'আমি তোমাদের বলিয়াছি যে, পিতা শক্তি না দিলে কেহই আমার নিকটে আসিতে পারে না'৷

অনেকেই যারা ঈসা মসিহকে অনুসরণ করতো তারা এই অতি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি উপলব্ধি করতে ব্যর্থ হয়েছিল এবং তাঁকে ত্যাগ করেছিল৷ তার মাংস খাওয়া এবং রক্ত পান করার বিষয়ে আলোচনাটি গালিলে তার কার্যাবলির মূল বিষয় ছিল এবং আরও অনেক কারণ ছিল যে জন্যে তার অনেক অনুসারীরা তাকে ত্যাগ করেছিল৷ সুতরাং পরিত্যাগকারীদের সংখ্যা অপ্রতুল ছিল যা মানবিক যুক্তিবিদ্যার বাইরে ছিল এবং ঈসা মসিহের ওপর নি:শর্তে নির্ভর করতে পারছিল না৷ তারা তাঁর বেহেশতির সত্ত্বাটিকে খুঁজে পাচ্ছিল না এবং তার সাথে কোনো চুক্তির মধ্যে যেতে সাহস করছিল না তার কোরবানির ভিত্তির ওপর নির্ভর করে৷

ঈসা মসিহ তার সাহাবিদেরকে বলেছিল যে তাদের মধ্যে কেউ কেউ তার রুহের বিরোধিতা করবে এবং তাকে ঢুকতে দেবে না৷ প্রভু তাদের প্রত্যেকের হৃদয়ের আবেগকে দেখতে পেয়েছিলেন৷ তিনি যিহুদা ইস্কারিয়তের বিশ্বাসঘাতকতার কথা জানতেন, যে প্রথম থেকেই এই দলে যোগ দিয়েছিল৷ ঈসা মসিহের ভালোবাসার রুহের কাছে সম্পূর্ণভাবে নিজেকে খুলে দিতে যিহুদা অনিচ্ছুক ছিল৷ ঈসা মসিহ জানতেন যেমনি তিনি তার দেহকে কোরবান করবার বিষয়ে আলোচনা করেছিলেন এবং বলেছিলেন তাদের মধ্যে উপস্থিত কেউ তাকে প্রাণদণ্ড দেওয়ার জন্য সমর্পণ করবে৷

পরিশেষে এই রহস্যের পুণরাবৃত্তি করেছিলেন যে খোদার রুহের কার্য ব্যতীত কেউ ঈসা মসিহের ওপর ঈমান আনতে পারে না৷ রুহের সাহায্য ব্যতিত কেউ ঈসা মসিহকে প্রভু বলে সম্মোধন করতে পারে না৷ আমাদের বিশ্বাস সাধারণ কোনো প্রত্যয় নয় কিন্তু রুহের কার্যের মধ্য দিয়ে তা ঈসা মসিহের সাথে ব্যক্তিগত একাত্মতা সৃষ্টি করে৷ পিতার রুহের আকর্ষণের কাছে আপনার আত্মাকে খুলে দিন এবং ঈসা মসিহের কোনো সত্যের বিরোধিতা করবেন না৷ তখন আপনি আপনার কাছে তার আত্মসমর্পণের অভিজ্ঞতা লাভ করবেন এবং চিরকাল তার সঙ্গে থাকবেন৷ তিনি জীবনের রুটি যা আপনার জন্য তৈরি করা হয়েছে৷

প্রশ্ন:

৫০. ঈসা মসিহের দেহে কীভাবে জীবন দানকারী রুহ যোগ দিয়েছিলেন?

www.Waters-of-Life.net

Page last modified on June 13, 2012, at 10:16 AM | powered by PmWiki (pmwiki-2.2.109)