Waters of Life

Biblical Studies in Multiple Languages

Search in "Bengali":
Home -- Bengali -- John - 037 (Christ raises the dead and judges the world)
This page in: -- Arabic -- Armenian -- BENGALI -- Burmese -- Cebuano -- Chinese -- English -- Farsi? -- French -- Hausa? -- Hindi -- Indonesian -- Kiswahili -- Kyrgyz -- Malayalam -- Peul -- Portuguese -- Russian -- Serbian -- Spanish? -- Tamil -- Telugu -- Turkish -- Urdu -- Uyghur? -- Uzbek -- Vietnamese -- Yiddish

Previous Lesson -- Next Lesson

যোহন - নূর অন্ধকারের মধ্যে জ্বলছে
যোহন বর্ণীত মসিহের নাজাতের বারতার সুসমাচার ওপর অধ্যয়ন
দ্বিতীয় খণ্ড - নূর অন্ধকারের মধ্যে জ্বলিতেছে (যোহন ৫:১ - ১১:৫৪)
ক) জেরুজালেমে দ্বিতীয় যাত্রা (যোহন ৫:১-৪৭) -- ঈসা মসিহ এবং ইহুদিদের মধ্যে বিবাধের শুরু হলো

৩. ঈসা মসিহ মৃতকে পুনুরুত্থিত করেন এবং দুনিয়ার বিচার করেন (যোহন ৫:২০-৩১)


যোহন ৫:২৫-২৬
২৫. আমি আপনাদের সত্যই বলিতেছি, এমন সময় আসিতেছে, বরং এখনই আসিয়াছে, যখন মৃত লোকেরা খোদার পুত্রের গলার আওয়াজ শুনিবে এবং যাহারা শুনিবে তাহারা জীবিত হইবে৷ ২৬. ইহার কারণ, পিতা নিজে যেমন জীবনের অধিকারী, তেমনই তিনি পুত্রকেও জীবনের অধিকারী হইতে দিয়াছেন৷

ঈসা মসিহ তাঁর কথার মধ্য দিয়ে পরিষ্কার করে বলেছেন যে তিনিই সত্য, 'আমি আপনাদেরকে সত্যই বলিতেছি'৷ তৌরাতের লোকেরা যা কল্পনা করেছিল ঈসা মসিহ তাঁর থেকে বেশি প্রগাঢ় ভাবে তার আগমন সম্পর্কে ভবিষ্যদ্ববাণীসমূহ পূর্ণ করেছিলেন৷ তিনি মৃতদেরকে আজও পুনুরুত্থিত করেন এবং আগামীতে করবেন৷ সবাই পাপ এবং কলুষতার মধ্যে মৃত, কিন্তু ঈসা মসিহ পবিত্রজন, খোদার পুত্র যিনি মনুষ্যদেহধারী, তিনি দৈহিকভাবে পাপকে অতিক্রম করেছে! এবং বিশ্বাসের মধ্য দিয়ে তার জীবনে আমাদেরকে অংশগ্রহণ করিয়েছেন৷ যে কেউ আজ সুসমাচারের মুক্তির বিষয়ে মনোযোগ দেয় এবং তা বোঝে ও ঈসা মসিহকে ধরে রাখে সে খোদার জীবন পায়৷ পুনরুত্থানের দিন থেকে আমরা জানি যে আমাদের বিশ্বাস হলো জীবনের ওপর বিশ্বাস, এটা মৃতু্য বা নরক ভোগের ধর্ম নয়৷ ঈসা মসিহ তাদেরকে জীবনের রুহ দেন যারা তাঁর কথা শোনে, যদিও তারা পুরোপুরি উপলব্ধি করতে পারে না কিন্তু তবুও তারা তার কথার পূর্ণতাকে অনুধাবন করতে চায়৷ তাদের কাছে তিনি অকৃত্রিম কথা বলেন এবং অলৌকিক কথা তাদের ভিতর কাজের ফলাফল নিয়ে আসে৷ মৃতেরা তাদের নিজেদের ইচ্ছায় জেগে পুনরুত্থিত হতে পারে না এবং কিছু শুনতে পারে না, কিন্তু ঈসা মসিহ তাদেরকে জীবন দেন এবং তাই তারা তাঁর কথায় মনোযোগ দেয়৷

আমাদের পার্থিব জীবন ক্ষয়প্রাপ্ত হয় কিন্তু বেহেশতি জীবন, যা আমাদেরকে দেওয়া হয়েছে, তা চিরকাল থাকে৷ যেমন ঈসা মসিহ বলেছেন, 'আমিই পুনুরুত্থান এবং জীবন৷ যে আমার উপরে বিশ্বাস রাখে সে মরিলে ও বাঁচিবে এবং যে কেউ আমাকে বিশ্বাস করে এবং আমার ভিতরে বাস করে সে কখনো মরিবে না৷'

ঈসা মসিহ আমাদের পুনরুজ্জীবিত করতে পারেন যেহেতু পিতা তার কাছে অনন্ত জীবনের পূর্ণতাকে অর্পণ করেছেন৷ ঈসা মসিহ একটি বিশাল ঝরনাধারার মতো যার থেকে জীবনের পানি অবিরত বইতে থাকে৷ তার থেকে আমরা আলোর ওপর আলো, প্রেমের ওপর প্রেম এবং সত্যের ওপর সত্যকে পাই৷ তাঁর থেকে কোন অন্ধকার বা কলুষতা অথবা কোনো মন্দ চিন্তা বেরিয়ে আসেনা৷ তিনি প্রেমে পরিপূর্ণ যেভাবে পৌল প্রকাশ করেছে; ঈসা মসিহ করুণায় পূর্ণ এবং এমন একজন বন্ধু যে ঈর্ষা বা গর্ব করে না, তিনি নিজের জন্য কিছু খোঁজেন না, কারো ব্যাপারে মন্দ চিন্তা করেন না অথবা কারো অপরাধের জন্য আনন্দিত হন না৷ তিনি সব কিছু সহ্য করেন, সবার জন্য ধৈর্য ধরেন, তার ভালোবাসা কখনো ব্যর্থ হয় না৷ এইটাই তিনি রুহের মধ্য দিয়ে আমাদের উপরে অর্পণ করেছেন৷ আসুন, আমরা জীবনের ঝরনা হই৷

যোহন ৫:২৭-২৯
২৭. 'পিতা পুত্রকে মানুষের বিচার করিবার অধিকার দিয়েছেন, কারণ তিনি মনুষ্য পুত্র৷ ২৮. এই কথা শুনিয়া আশ্চর্য হইবেন না, কারণ এমন সময় আসিতেছি, যাহারা কবরে আছে তাহারা সকলে মনুষ্যপুত্রের গলার আওয়াজ শুনিয়া বাহির হইয়া আসিবে৷ ২৯. যাহারা ভালো কাজ করিয়াছে তাহারা জীবন পাইবার জন্য উঠিবে, আর যাহারা অন্যায় কাজ করিয়া সময় কাটাইয়াছে, তাহারা আজাব ভোগ করিবার জন্য উঠিবে৷'

পাপের কারণে স্বাভাবিক মানুষ হলো মৃত৷ যে কেউ খোদার ভালোবাসার কাছে আসে না সে নিজেকেই নিজে বিচার করে৷ ঈসা মসিহের বাক্য হলো প্রেমময়, শক্তিশালী এবং খাঁটি৷ যে কেউ তার কথা শোনে সে বাঁচে৷ একই সময় তার বাক্য এবং আচরণ আমাদের জীবনের বিধান৷ খোদা তাঁর ওপর বিচারের ভার দিয়েছেন; তিনি পবিত্রজন, আমাদের মতো পরীক্ষিত হন কিন্তু পাপহীন৷ কোন মানুষই বেহেশতি বিচারের সামনে কোন ছুঁত খুঁজে পাবে না৷ ঈসা মসিহ একমাত্র ব্যক্তি যিনি সার্বজনিন বিচার করবার যোগ্য ব্যক্তি৷ তিনি সকল মানুষের নিয়তির বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারেন৷ ফেরেস্তারা এবং সকল প্রাথর্ী তাকে এবাদত করে৷

ঈসা মসিহের আদেশে পুনুরুত্থান নিশ্চিতভাবে ঘটবে৷ তাঁর গলার আওয়াজ আমাদের দুনিয়াকে সুচের মতো বিদ্ধ করব; মৃতেরা স্বাভাবিক আওয়াজ শুনতে পায় না৷ কিন্তু পুত্রের কন্ঠস্বর মৃতদেরকে কাঁপিয়ে তুলবে৷ ঘুমন্ত আত্মা জেগে উঠবে এবং কবর থেকে তারা বেরিয়ে আসবে৷ বিস্ময়কর হলো কিছু আত্মা জীবিত অবস্থায় জেগে উঠবে, এবং অন্যেরা মৃতের মতো উঠবে৷ দুই ধরনের পুনুরুত্থান ঘটবে, একটি জীবনের আর একটি বিচারের জন্য৷ সেই সময়টি হবে অভূতপূর্ব আশ্চর্যের : কেউ কেউ অস্পষ্টভাবে আচ্ছাদিত থাকবে অথচ আমরা ভাবি তারা উজ্জ্বল আলোর মতো হবে৷ অন্যেরা সূর্যের মতো ঝলমল করবে অথচ আমরা ভাববো তারা সাধারণ এবং গুরুত্বহীন৷

খোদার সামনে ভালোমানুষেরা জীবিত থাকে, কিন্তু তারা মন্দ লোকদের থেকে খুব একটা ভালো কিছু না৷ কিন্তু প্রথম দলটি ঈসা মসিহ দ্বারা ক্ষমাপ্রাপ্ত হবে এবং ধন্যবাদের সাথে জবাব দেবে৷ তারা তাঁর সুসমাচারের শক্তির মধ্যে জীবন কাটিয়েছিল৷ তাদের জীবন ভালো ফল প্রদর্শন করে যা পাক-রুহ দ্বারা তৈরি করা হয়েছিল৷ ঈসা মসিহ তাদের মন্দতাকে তার অমূল্য রক্ত দ্বারা মুছে ফেলেছিলেন৷ বিশ্বাসের মাধ্যমে এই রহমতো তাদের কাছে এসেছিল৷

যাইহোক, যে কেউ চিন্তা করে তার নিজের কার্যাবলি খোদার কাছে যথাযোগ্য বা পর্যাপ্ত সে এই কথা শুনবে, 'তুমি অহংকারী, কেননা শুধুমাত্র নিজের মুক্তির বিষয়ে উদ্বিগ্ন ছিলে, কিন্তু তোমার শত্রুদের ভালোবাসনি? তুমি কেন সম্পূর্ণভাবে পুনর্মিলকে গ্রহন করনি যা সলিবে কোরবানীকৃত ব্যক্তি খোদা এবং তোমার মধ্যে সম্পাদন ঘটিয়েছেন? এবং কেমন করে তুমি তোমার নিজের জন্য দেওয়া অনন্ত জীবনকে প্রত্যাখ্যান করেছ? সুতরাং যে রহমতো তোমাকে দেওয়া হয়েছিল তা ব্যতীতই তুমি চলতে থাক' যারা পাপের মধ্য থেকে মৃতু্যবরণ করেছে তারা উত্থিত হয়ে চরম বিচারের সম্মুখীন হবে, এবং তারা তাদের কথার, কাজের এবং চিন্তার বিশদ হিসাবপ্রাপ্ত হবে৷ অথচ যে কেউ তার প্রতি বিশ্বাসের মধ্য দিয়ে ঈসা মসিহের মহিমার কাছে আসবে, সে ঈসা মসিহের ভালোবাসায় পূর্ণ হবে৷ এটা তাকে করুণাপূর্ন কাজের জন্য অনুপ্রাণিত করে, এটা হলো এখনকার অনন্ত জীবনের বৈশিষ্ট৷

যোহন ৫:৩০
আমি নিজ হইতে কিছুই করিতে পারি না; যেমন শুনি তেমনই বিচার করি৷ আমি ন্যায় বিচার করি, কারণ আমি আমর ইচ্ছা মতো কাজ করিতে চাই না, কিন্তু যিনি আমাকে পাঠাইয়াছেন তাহারই ইচ্ছামতো কাজ করিতে চাই৷

ঈসা মসিহ সকল কাজের থেকে মহত্‍ কাজটি সম্পাদন করিয়াছিলেন; তিনি শাশ্বত বিচারক৷ যে কর্তৃত্ব তাকে দেওয়া হয়েছিল সে ব্যাপারে তিনি সচেতন ছিলেন৷ তথাপি তিনি নম্র ছিলেন এবং নিজেকে অত্যন্ত নিচু করেছিলেন এবং বলেছিলেন, 'আমি নিজ হতে কিছুই করতে পারিনা'৷ সেটা হলো আমি নিজে থেকে বিচার, চিন্তা, ভালোবাসা এবং আমার নিজের নিশ্বাস নিতে পারি না৷ তাই তিনি সকল সম্মান পিতাকে দেন৷

সব সময় ঈসা মসিহ তার পিতার নিয়ন্ত্রণে ছিলেন৷ এই দুজনার ভিতর যোগাযোগটা কখনোই বিচ্ছিন্ন ছিল না৷ খোদার কন্ঠস্বর তাকে মানুষের রুহ্রে ব্যাপারে তথ্য দিতেন৷ খোদার রুহ দুনিয়াকে পরীক্ষা করে এবং আপনার হৃদয়কেও, এবং আপনার চিন্তাগুলোকে প্রকাশ করে যা আপনি অন্যদের থেকে লুকাতে চান৷ ঈসা মসিহের মধ্যে এই রুহ আপনাকে সঠিকভাবে বিচার করেন৷ আপনি যদি আপনার পাপসমূহকে খোদার কাছে স্বীকার করেন তাহলে আপনি আর্শিবাদপুষ্ট হলেন এবং সলিবে কোরবানি হওয়া ব্যক্তির কাছ থেকে ক্ষমা পেলেন, এবং জীবনগ্রন্থে আপনার নাম লিপিবদ্ধ থাকবে৷ তখন তিনি ন্যায়পরায়ণদের বলবেন, 'আমার পিতার আশর্ীবাদপুষ্টজন, তুমি এস, রাজ্যের উত্তরাধিকারী হও যা তোমার জন্য তৈরি করা হয়েছে পৃথিবী সৃষ্টির প্রথম থেকে'৷

ঈসা মসিহ সত্য, কখনোই মিথ্যা বলবেন না; তিনি জানেন মানুষের হৃদয়ের মধ্যে কী আছে৷ তিনি আমাদের সেই সমস্ত বৈশিষ্টগুলিকে জানেন যা আমরা আমাদের পূর্বপুরুষদের কাছ থেকে উত্তরাধিকারী সুত্রে পেয়েছি, এবং তিনি আমাদেরকে দ্রুততার সাথে বিচার করেন না৷ পাপীর অনুতাপের জন্য তিনি ধৈর্য্য সহকারে অপেক্ষা করেন৷ তার পবিত্র বৈশিষ্ট্য তাদেরকে পৃথক করে যারা তার করুণার মধ্য দিয়ে করুণাপূর্ণ হয়েছে এবং তাদের থেকে পৃথক করে যারা তার রুহকে প্রত্যাখ্যান করেছে এবং নিজেদের হৃদয়কে কঠিন করে রেখেছে৷

ঈসা মসিহ তাঁর নম্রতাকে অবমানিত অবস্থার পাশাপাশি দেখিয়েছেন৷ তিনি সব বিষয় পিতাকে প্রশ্ন করেন যা তিনি জানতে চান৷ তাই ঈসা মসিহ তার পিতার ইচ্ছাকে কথায় এবং কার্যে এমনকি সলিবের জ্বালা নিয়েও পরিপূর্ণ করেছিলেন৷ চূড়ান্ত সময়ে তিনি প্রার্থনা করেছিলেন 'আমার ইচ্ছায় নয় বরং তোমার ইচ্ছাই পূর্ণ হোক'৷ এইভাবে তিনি খোদার বিচারকে সম্পূর্ণভাবে পূর্ণ করলেন৷ পিতা ও পুত্রের মধ্যে এই সমস্ত সম্পর্ক প্রচারকের দ্বারা লিপিবদ্ধ হয়েছে যার উদ্দেশ্য ছিল ত্রিত্বের একাত্বতার ওপর আমাদের বিশ্বাসের ভিত্তি তৈরি করা৷ মৃতদেরকে পুনুরুত্থিত করার কর্তৃত্ব পিতা ও পুত্রের সমভাবে ছিল৷ খোদা তাকে তার সমস্ত কার্যাবলি দেখিয়েছেন, এবং কিছুই পুত্রের কাছে গোপন রাখেননি৷ ঈসা মসিহের কন্ঠস্বর মৃতদেরকে উত্থিত করবে; তার কাছে মৃতু্য এবং নরকের চাবিগুলি আছে৷ কেবলমাত্র বোধশক্তির কাছে আমাদের বিশ্বাস হলো একটি রহস্য; যদি ঈসা মসিহের ভালোবাসা আমাদের ওপর বর্ষিত হয় তার নম্রতার ভিতর দিয়ে তাহলে আমরা যৌক্তিকভাবে উপলব্ধি করবো, খোদা এক, তিন ব্যক্তিত্বের মধ্যে যার ভিতর দিয়ে আমাদের মুক্তি আসে৷

প্রশ্ন:

৪১. পিতা ও পুত্রের মধ্যে কী সম্পর্ক যা ঈসা মসিহ ব্যাখ্যা করেছে?

www.Waters-of-Life.net

Page last modified on June 12, 2012, at 12:33 PM | powered by PmWiki (pmwiki-2.2.109)